ঢাকাSunday , 29 November 2020

বঙ্গবন্ধুকে সম্মানিত করা দেশ ও জাতিকে সম্মানিত করা। আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী

মামুনুর রশীদ
November 29, 2020 12:54 pm
Link Copied!

বঙ্গবন্ধুকে সম্মানিত করা দেশ ও জাতিকে সম্মানিত করা। আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপনের বিরোধিতাকারী দেশ ও জাতিকে অসম্মান করছে এমন মন্তব্য করে

যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী
তার ফেইসবুক আইডি থেকে একটি স্ট্যাটাস দেন, স্ট্যাটাসটি হুবহুব নিউজ পোর্টাল ২৪ পাঠকের জন্য তুলে ধরা হলো,

“বাংলাদেশের জন্মলগ্ন থেকে একটি গোষ্ঠী ধর্মকে ব্যবহার করে, ভিন্ন দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় সামনে এনে, গুজব রটিয়ে দেশের মধ্যে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করে। বিশেষ করে ঠিক তখন এই স্বাধীনতা বিরোধী, দেশ বিরোধী, বিদেশী রাষ্ট্রের প্রভুত্ব মেনে নেয়া গোষ্ঠী তাদের চক্রান্ত নিয়ে মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে যখন সোনার বাংলাদেশ একটির পর একটি উন্নয়নের মাইলফলক ছোঁয়।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষ্কর্যকে ইস্যু বানিয়ে তারেক রহমানের এজেন্ট মামুনুল হক গং যে ধরনের ন্যাক্কারজনক, উস্কানিমূলক, অসম্মানজনক কথা বলছে তা দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে দেশকে অস্থিতিশীল ব্যার্থ রাষ্ট্রে পরিণত করার চক্রান্তে লিপ্ত ষড়যন্ত্রকারীদের সম্মিলিতভাবে ভাবে দেশবিরোধী কর্মকাণ্ডের আরেক নীলনকশা।

বঙ্গবন্ধু দেশের ১৭ কোটি মানুষের মাথার তাজ। তিনি আমাদের গৌরবের, অহঙ্কারের, জাতিসত্তার বিকাশের প্রতীক। তিনি আমাদের বাঙ্গালির অস্তিত্ব, তাঁকে সম্মানিত করার মাধ্যমে দেশ ও জাতিকে সম্মানিত করা হয়।

মামুনুল হকরা কোনোদিন দেশের স্বাধীনতা ও অস্তিত্বে বিশ্বাস করেনা। তাই তারা মহান স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অসম্মানিত করার চেষ্টার মাধ্যমে দেশের মানুষের সর্বোচ্চ সম্মানের জায়গাতে ফাটল ধরানোর চক্রান্ত করছে।

এই জাতী কখনো এমন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হতে দিবে না। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ জানে কীভাবে দেশের সম্মানের দিকে ধেয়ে আসা আঘাতকে প্রতিহত করতে হয়।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকায় দলের নেতা কর্মীরা ধৈর্য্য ও সংযম দেখাচ্ছে। স্বাধীনতা বিরোধীদের দোসর তারেক রহমানের লেলিয়ে দেয়া মেরুদণ্ডহীনদের অপপ্রচারের দাঁতভাঙা জবাব বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা মুহুর্তে দিতে পারে। কিন্তু রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব নেয়া দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল দেশের স্থিতিশীলতার স্বার্থে সংযম দেখাচ্ছে।

এই সংযমকে কোনোভাবে দূর্বলতা ভাবা ঠিক হবে না। মামুনুল হক গং খালেদা তারেকের পেইড এজেন্ট। এই পেইড এজেন্টরা শাপলা চত্বরে অবস্থান নিয়ে কীভাবে ঢাকাকে নরক বানানোর অপচেষ্টা করেছিল, কীভাবে পবিত্র কোরআন শরীফ পুড়িয়ে ধর্মকে অবমাননা করেছিল তা ভালোভাবেই দেশের মানুষের মনে আছে।

এবং আরো মনে আছে এই পেইড এজেন্টরা মাদ্রাসার ছোট ছোট কোমলমতি শিশুদের শাপলা চত্বরে রেখে রাতের অন্ধকারে পালিয়ে গিয়েছিল, শাপলা চত্বর থেকে অসম্মান নিয়ে মামুনুল হকরা বিতাড়িত হয়েছিল।

নিজের কর্মফল নিজেদের ভোগ করতে হবে। মামুনুলরা যেনো এখনই সাবধান হয়ে যায়, জাতির পিতার প্রতি অসম্মান, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার উদ্দেশ্যে বলা ধৃষ্টতা কোনো ভাবে আমরা মেনে নিব না।

” জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু ” স্লোগান নিয়ে গর্জে উঠে বাংলার আপামর জনতা মুক্তিযুদ্ধের মতো পাকিস্তানি প্রেতাত্মাদের শাস্তি দিতে বাধ্য হবে।”